মেনু নির্বাচন করুন
পাতা

সাম্প্রতিককর্মকান্ড

বিশ্বায়নের এ যুগে প্রগতিশীল সমাজ গড়ে তোলার লক্ষ্যে নারীর অধিকার, ক্ষমতায়ন ও কর্মবান্ধব পরিবেশ সৃষ্টি অত্যাবশ্যক। জেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তার কার্যালয়, নাটোর রাষ্ট্র ও সমাজের মূল স্রোতধারায় নারী উন্নয়ন ও অধিকার প্রতিষ্ঠায়  কাজ করে যাচ্ছে। গত 3 বছরে  ভিজিডি কার্যক্রমের মাধ্যমে ৩৬,৭১৩ জন দরিদ্র মহিলাদেরকে খাদ্য সহায়তা দেয়া হয়েছে। প্রায় ৭,১০৬ জন নারীকে মাতৃত্বকালীন ভাতা প্রদান করা হয়েছে। ৪,৯২০  জন কর্মজীবী নারীকে ল্যাকটেটিং ভাতা সহায়তা প্রদান করা হয়েছে। ২১৪  জন নারীকে ২৬,৮১,১৮৬    টাকা ক্ষুদ্র ঋণ প্রদান করা হয়েছে। ৭৮০ জন নারীকে আত্ম-কর্মসংস্থানের লক্ষ্যে বিভিন্ন প্রশিক্ষণ দেয়া হয়েছে।  সাহায্য প্রার্থী মহিলাদের আইনি সহায়তা দেয়া হয়েছে। “জয়িতা অন্বেষণে” প্রতিযোগিতার মাধ্যমে প্রতিকূলতাকে অতিক্রম করে যে সমস্ত নারীরা সমাজের বিভিন্ন ক্ষেত্রে প্রতিষ্ঠা লাভ করেছেন তাদের মধ্য থেকে প্রতি উপজেলায় ৫টি ক্যাটাগরীতে ৫ জন নারীকে “জয়িতা” নির্বাচন ও পুরস্কৃত করার মাধ্যমে নারীদেরকে সামনে এগিয়ে যাওয়ার ক্ষেত্রে উদ্ভুদ্ধ করা হয়েছে। উদ্যোমী ও আগ্রহী নারীদেরকে উদ্যোক্তা হিসেবে গড়ে তোলার জন্য সহায়তা প্রদান করা হয়েছে।   আত্ননির্ভরশীল করার লক্ষে দরিদ্র মহিলাদের মধ্যে ৩০ টি সেলাই মেশিন বিতরণ করা হয়েছে। জেলা হতে বাল্যবিয়ে নিরোধে বিভিন্ন শ্রেণী পেশার জনগণকে নিয়ে সচেতনতা মূলক সভা সমাবেশ , সেমিনার আয়োজন করা হয়েছে। স্বপ্ন প্যাকেজের আওতায় আবাসন ও ল্যাট্রিন সুবিধাভোগী 66 জন,  জীবীকায়ন উপকরণ (গরু ছাগল হাঁস মুরগী ভ্যান রিক্সা ইত্যাদি) 66 জনকে সুবিধা প্রদান করা হয়েছে। প্রায় ১৬৪  টি বাল্যবিয়ে বন্ধ করা হয়েছে। জাতীয় নারী উন্নয়ন নীতি-২০১১ বাস্তবায়ন কল্পে জাতীয় কর্মপরিকল্পনা-২০১৩ অনুযায়ী বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহন করা হয়েছে।

 

সমস্যা এবং চ্যালেঞ্জসমূহ :

বাল্যবিবাহ, নারীর প্রতি সহিংসতা প্রতিরোধ, লক্ষ্যভূক্ত সকল দুঃস্থ নারীকে প্রোগ্রামের অন্তর্ভূক্ত করতে না পারা, কর্মকর্তাদের যুগোপযোগী প্রশিক্ষণের অভাব এবং মাঠ পর্যায়ে জনবলের অপ্রতুলতা অন্যতম প্রধান সমস্যা। প্রকৃত উপকারভোগী বাছাই এবং নারী উন্নয়নে বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের কার্যক্রম সমন্বয় সাধন ও সহায়তা প্রদান এ কার্যালয়ের অন্যতম চ্যালেঞ্জ।

 

 

ছবি


সংযুক্তি


সংযুক্তি (একাধিক)



Share with :

Facebook Twitter